জীবন দর্শন ভ্রমন স্বাস্থ্য ইতিহাস অনুপ্রেরণা চাকরি জানা-অজানা বিশেষ প্রতিবেদন সাক্ষাৎকার

সর্বংসহ যুুবনেতা কামরুল আহসান মহারাজ

0

মোঃ কামরুল আহসান মহারাজ
সভাপতি, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ, জেলা শাখা, বরগুনা।

রাজিব হাসান
বরগুনা প্রতিনিধি:

সম্প্রতি বরগুনা আওয়ামী যুবলীগের সভাপতি মোঃ কামরুল আহসান মহারাজের সাথে কথা হয়েছে কন্ঠ ৭১’র বরগুনা প্রতিনিধি রাজিব হাসানের। বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলাদেশ গঠনে তার ভূমিকাসহ নানা বিষয় উঠে এসেছে তার বক্তব্যে। কন্ঠ ৭১’র পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো সেই বক্তব্য।

প্রশ্নছিল যুবলীগের সভাপতি থাকাকালিন গঠনমূলক কার্যক্রম ও বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলাদেশ গঠনে আপনার ভূমিকা?

তার বক্তব্য ছিল, সাংগঠনকে ত্বরান্বিত করতে ইউনিয়ন পর্যায় থেকে ওয়ার্ড, থানা ও প্রত্যেকটা জায়গায় যোগ্য নেতৃবৃন্দদের সমন্বয়ে যুবলীগের কমিটি গঠন ও বিভিন্ন ধরনের সামাজিক কর্মকান্ডে সক্রিয়ভাবে বরগুনাবাসির পাশে থেকেছি।

বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা রূপান্তরের মূল কথা অর্থনৈতিক মুক্তি। এই বাংলার আপামর জনতার দারিদ্রতার হাত থেকে মুক্তি যা নির্মূলে জননেত্রী শেখ হাসিনার সকল কার্যক্রমকে আমি সমর্থন করি এবং তার নির্দেশিত সকল কার্যক্রমে আমি পূর্ণ বিশ্বাস ও আস্থা দিয়ে কাজ করে যাচ্ছি। তিনি আসন্ন নির্বাচনে আবারও নৌকার প্রতীকের প্রতি আশা ব্যক্ত করে বলেন, আসন্ন নির্বাচনে আমরা তথা বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ আবার সরকার গঠন করবে বলে পূর্ণ আশাবাদী। তিনি জননেত্রী শেখ হাসিনার নতুন নেতৃত্বের আহবানকে সাধুবাদ জানিয়ে নেত্রীর প্রতি আনুগত্যতা প্রকাশ করেন।

তিনি আরো বলেন, ‘ব্যক্তিগত পেশায় আমি একজন আইনজীবি। আমার কর্মের জায়গা থেকে দলীয় নেতা কর্মীদের প্রতি সর্বোচ্চ সহযোগিতা করেছি।’ দুর্ণীতি ও অপশাসন বিরোধী আন্দোলনে বিপ্লবি ছাত্রনেতা হিসেবে যেমন ভূমিকা রেখেছি, কর্মজীবনে দুদক এর পি.পি’র দায়িত্বেও সক্রিয়ভাবে কাজ করছি সরকারের জন্য।

দলীয় সিদ্ধান্ত ও নির্দেশনা মেনে রাজনীতিতে নিবেদিত থাকলেও অর্থনৈতিক সীমাবদ্ধতার কারণে বিশেষ স্থাপনা নির্মান না করলেও চেষ্টা করেছি মসজিদ, মন্দির, স্কুল কলেজ নির্মানে ভূমিকা রাখতে। দুঃখি মেহনতি শ্রমজীবি মানুষের পাশে থেকেছি আত্মিক টানে। তাদের দুঃখ দুর্দশা অসুস্থতায় নিজের সাধ্যের মধ্যে থেকে এগিয়ে আসার চেষ্টা করেছি।

প্রতিষ্ঠা লগ্ন থেকে এখন পর্যন্ত ‘বাংলার মুখ’ ও ‘বঙ্গবন্ধু সমাজ কল্যান পরিষদ’ বরগুনার সভাপতিত্ব করছি। বরগুনা ‘খেলাঘর’র পরিচালনা পরিষদের উপদেষ্টা হিসেবে সাংস্কৃতিক অঙ্গনকে তরান্বিত করতে চেষ্টা করেছি। ইভটিজিং এবং মাদক থেকে যুবসমাজকে রক্ষার্থে রেখেছি গর্বিত ভূমিকা।

জনসাধারনের জন্য বিশেষ কোন কাঠামো স্থাপনা করতে না পারলেও কিছুটা হলেও ভূমিকা রেখেছি সুষ্ঠ সমাজ গড়তে। বরগুনার মানুষের ভালবাসাও পেয়েছি, স্বান্তনা স্মারক ও সর্বংসহ যুবনেতা হিসেবে।

ফেইসবুক মন্তব্য

Leave A Reply