জীবন দর্শন ভ্রমন স্বাস্থ্য ইতিহাস অনুপ্রেরণা চাকরি জানা-অজানা বিশেষ প্রতিবেদন সাক্ষাৎকার

প্রান্তিক চিংড়ি চাষীদের জন্য ক্ষুদ্র ঋণ প্রকল্প চালু

0

মৎস্য ও প্রাণী সম্পদ মন্ত্রী নারায়ণ চন্দ্র চন্দ্র সম্প্রতি খুলনায় প্রান্তিক চিংড়ি চাষীদের জন্য ক্ষুদ্র ঋণ প্রকল্প উদ্ধোধন করেছেন। এই প্রকল্পের আওতায় প্রান্তিক চিংড়ি চাষীরা পুকুর প্রস্তুতি, বীজ ক্রয়, সুষম বীজের ব্যবহার এবং জৈব নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য দলগতভাবে ঋণ পাবেন।

বাস্তবসম্মত একটি ব্যবসা পরিকল্পনার ভিত্তিতে ‘ ডুমুরিয়া ক্লাষ্টার ফার্মিং’ পাইলট প্রকল্পের আওতায় প্রান্তিক চিংড়ি চাষীদের দলগত ঋণ দিতে বাংলাদেশ কর্মাস ব্যাংক (বিসিবিএল) এগিয়ে এসেছে। এছাড়াও নির্বাচিত প্রান্তিক চিংড়ি চাষী, মৎস্য অধিদপ্তর, বাংলাদেশ শ্রিম্প অ্যান্ড ফিস ফাউন্ডেশন, এমকেএ হ্যাচারী, বাংলাদেশ কর্মাস ব্যাংক লিমিটেড প্রকল্পের অংশীদার হিসেবে আছে।

ক্ষুদ্র ঋণ প্রকল্পের উদ্ধোধনী অনুষ্ঠানে মৎস্য ও প্রাণী সম্পদ মন্ত্রী নারায়ণ চন্দ্র চন্দ্র চিংড়ি চাষীদের সহায়তার জন্য উদ্ভাবিত এই পদ্ধতিতে অর্থায়নের জন্য বাংলাদেশ কর্মাস ব্যাংক লিমিটেডকে ধন্যবাদ জানান। সেই সাথে তিনি আশা প্রকাশ করেন এই পাইলট প্রকল্পটি সফল হবে এবং অনান্য ক্ষুদ্র চিংড়ি চাষীরাও কøাষ্টার সিস্টেম গ্রহণে অনুপ্রাণিত হবে। সেই সাথে কর্মাস ব্যাংক ছাড়াও অনান্য ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানকে এই প্রকল্পে অর্থায়নে এগিয়ে আসার আহবান জানান তিনি।

মৎস্য ও প্রাণী সম্পদ মন্ত্রনালয়ের সচিব রাইসুল ইসলাম মন্ডল আশাবাদ ব্যাক্ত করে বলেন প্রান্তিক চিংড়ি চাষীদের ক্ষুদ্র ঋণের চাহিদা ও অনান্য সহায়তা নিশ্চিতে কাস্টার একটি কার্যকরী সমাধান। এমন একটি যুগোপযুগী উদ্যোগ গ্রহণের জন্য মৎস্য অধিদপ্তর, বাংলাদেশ শ্রিম্প অ্যান্ড ফিস ফাউন্ডেশন, এমকেএ হ্যাচারী এবং বাংলাদেশ কর্মাস ব্যাংকে ধন্যবাদ জানান তিনি।

বাংলাদেশ কর্মাস ব্যাংকের চেয়ারম্যান প্রকৌশলী ড. রশিদ আহমেদ চৌধুরী বলেন বাংলাদেশ কর্মাস ব্যাংক এই উদ্ভাবনী উদ্যোগের অংশ হতে পেরে গর্বিত। প্রয়োজন হলে তাঁর ব্যাংক আরো বড় স্কীমের জন্য এগিয়ে আসবে।

বাংলাদেশ শ্রিম্প অ্যান্ড ফিস ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান সৈয়দ মাহমুদুল হক বলেন এই উদ্যোগে জড়িত সব অংশীদাররা উদ্ভাবিত পদ্বতির উন্নয়নে ও প্রান্তিক চিংড়ি চাষীদের সহায়তায় আন্তরিকভাবে কাজ করে যাচ্ছেন।

তিনি আরও বলেন, চিংড়ি খাতে কৃষি ঋণের নির্দিষ্ট শতাংশ নির্ধারণ করার পাশাপাশি চিংড়ি খাতের জন্য ক্রেডিট গ্যারান্টি স্কিম নিশ্চিত করতে বাংলাদেশ শ্রিম্প অ্যান্ড ফিস ফাউন্ডেশন বাংলাদশ ব্যাংকের সাথে কাজ করছে।

ডুমুরিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাহনাজ বেগমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত উদ্ধোধনী অনুষ্ঠানে মৎস্য অধিদপ্তরের জোষ্ঠ কর্মকর্তাগণ ছাড়াও স্থানীয় চিংড়ি চাষী, বাংলাদেশ ফ্রোজেন ফুড এক্সপোর্টার এসোসিয়েশন, এমকেএম হ্যাচারীর প্রতিনিধিবৃন্দ ও স্থানীয় গণমান্য ব্যাক্তি বর্গ উপস্থিত ছিলেন।

ফেইসবুক মন্তব্য

Leave A Reply