জীবন দর্শন ভ্রমন স্বাস্থ্য ইতিহাস অনুপ্রেরণা চাকরি জানা-অজানা বিশেষ প্রতিবেদন সাক্ষাৎকার

এমন ‘মার’ আগে খাননি মোস্তাফিজ

0

ডানেডিনে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজের শেষ ওয়ানডেতে ১০ ওভারে ৯৩ রান দিয়েছেন মোস্তাফিজ। ওয়ানডেতে এটাই কি বাংলাদেশের কোনো বোলারের সবচেয়ে ব্যয়বহুল বোলিং? রেকর্ড দেখে অবশ্য সান্ত্বনা পেতে পারেন মোস্তাফিজ
প্রথম ওভারটা বেশ ভালোই করলেন। ৩ রান দিলেন। মোস্তাফিজুর রহমানের দুর্গতি শুরু তাঁর দ্বিতীয় ওভার থেকে। এক ছক্কা আর এক চারে ওই ওভারে ১০ রান নিলেন মার্টিন গাপটিল। এ মার দেখে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা হয়তো ‘ওর কপালে আজ শনি আছে’ ভেবে আক্রমণ থেকে মোস্তাফিজকে সরিয়ে নিলেন। বাঁহাতি পেসারকে আবার নিয়ে আসা হলো ২৪ ওভারে। এই ওভারে কিউইরা তুলল ১১ রান।

মোস্তাফিজ ইনিংসজুড়ে এভাবে মার খেতেই থাকলেন। মার রুবেল হোসেনও খেয়েছেন। তাঁর ৯ম ওভারেই তো নিউজিল্যান্ড নিল ২১ রান। কিন্তু মার খাওয়ায় মোস্তাফিজের ধারে কাছে ছিলেন না বাংলাদেশের আর কোনো বোলার। ২ উইকেট পেয়েছেন ঠিকই কিন্তু ১০ ওভারে ৯৩ রান দেওয়া ‘ফিজ’ প্রশ্ন করতে পারেন, ‘আজ কি বিশ্ব ধোলাই দিবস?’ না বললেও চলছে, এমন ব্যয়বহুল বোলিং মোস্তাফিজ আগে কখনো করেননি। আবির্ভাবেই আলোড়ন তোলা বাংলাদেশ দলের বাঁহাতি পেসার গত চার বছর ধরেই টিম ম্যানেজমেন্টের কাছে ‘অটোমেটিক চয়েস’। তিনি যদি ফিট থাকেন এবং বিশ্রাম দেওয়ার কোনো বিষয় না থাকে, সীমিত ওভারের ক্রিকেটে তাঁকে ছাড়া বাংলাদেশ দলের বোলিং আক্রমণ ভাবাই যায় না। তাঁর প্রতি এই যে আস্থা, সেটির প্রতিদান তিনি নিয়মিত দেন। গত বছরও ওয়ানডেতে বাংলাদেশের সেরা বোলার মোস্তাফিজই ছিলেন। পুরস্কার হিসেবে সুযোগ পেয়েছেন আইসিসি বর্ষসেরা ওয়ানডে দলে।

আজকের ম্যাচের আগ পর্যন্ত ৪২ ওয়ানডেতে ৭৫ উইকেট পাওয়া মোস্তাফিজের ইকোনমি কোনো ম্যাচেই ৮ ছাড়ায়নি। সর্বোচ্চ ৬৩ রান দিয়েছেন দুবার, দুটিই গত বছর ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে। একটি সেন্ট কিটসে সিরিজ নির্ধারণী ম্যাচে, আরেকটি মিরপুরে সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডেতে। অথচ সেই মোস্তাফিজকে আজ কোনো বোলারই মনে করেননি নিউজিল্যান্ডের ব্যাটসম্যানরা! কিউইরা তাঁকে আজ বাউন্ডারিই মেরেছেন ১০টি। সীমিতওভারের ক্রিকেটে এক ইনিংসে এত বাউন্ডারি আর কখনো খাননি ফিজ! অথচ আজ বাংলাদেশের বোলারদের মধ্যে সবচেয়ে ভালো বোলিং করা মেহেদী হাসান মিরাজের চেয়ে (৯ ওভারে ৪৩ রান দিয়েছেন) বেশি ডট বল দিয়েছেন মোস্তাফিজ—২৩টি। তার মানে ৯৩ রান দিয়েছেন বাকি ৩৭ বলে!

মন খারাপের এই দিনে মোস্তাফিজ অবশ্য সান্ত্বনা পেতে পারেন শফিউলের কাছ থেকে। ওয়ানডেতে বাংলাদেশের সবচেয়ে ব্যয়বহুল কিংবা সবচেয়ে বাজে বোলিংয়ের রেকর্ডটা শফিউলেরই। ২০১০ সালের জুলাইয়ের বার্মিংহামে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ৯ ওভারে ৯৭ রান দিয়েছিলেন বাংলাদেশ দলের এই পেসার। বোলিংয়ে অল্পের জন্য ‘সেঞ্চুরি’ ফসকে যাওয়া শফিউল ঠিক আগের মাসেই ২০১০ এশিয়া কাপে ডাম্বুলায় পাকিস্তানের বিপক্ষে দিয়েছিলেন ১০ ওভারে ৯৫ রান। মুক্ত হস্তে রান বিলানোর এই রেকর্ডে মোস্তাফিজের অবস্থান তিনে। তবে ৯ বছর পর বাংলাদেশের কোনো বোলার ওয়ানডেতে ৯০-এর ওপর রান দিলেন।

ওয়ানডে ইতিহাসে বোলারদের এই লজ্জার রেকর্ডে বাংলাদেশের বোলাররা অবশ্য একটু পিছিয়েই। এখনো পর্যন্ত পাঁচ বোলার রান বিলিয়ে সেঞ্চুরি করেছেন। এর মধ্যে সবার ওপরে আছেন অস্ট্রেলীয় পেসার মিক লুইস, ২০০৬ সালের মার্চে জোহানেসবার্গে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ১১৩ রান দিয়ে ছিলেন উইকেটশূন্য।
ওয়ানডেতে সবচেয়ে ব্যয়বহুল বোলিং

বোলার ওভার রান প্রতিপক্ষ সাল
লুইস ১০ ১১৩ দ.আফ্রিকা ২০০৬
ও. রিয়াজ ১০ ১১০ ইংল্যান্ড ২০১৬
ভুবনেশ্বর ১০ ১০৬ দ. আফ্রিকা ২০১৫
নুয়ান ১০ ১০৬ ভারত ২০১৭

ফেইসবুক মন্তব্য

Leave A Reply